অবশেষে মানুষের ঈশ্বর হয়ে ওঠা?

পাড়ায় বেশ শোরগোল হচ্ছে। ‘তন্তসঙ্গের ছেলেপেলে নাকি?’ ভাবলেন সিদ্ধার্থদা। তার অনুমান সঠিক। কিছুক্ষণ পরেই দেখা গেল তন্তসঙ্গের ছেলেগুলো তারস্বরে চেঁচাচ্ছে—জয়তু ভটকিল বড়াল, জয়তু বিজ্ঞান! একটু পড়েই কারণ জানা গেল—...

আমার ছেলে ইসলাম থেকে বের হয়ে গেছে- আধুনিকতার আত্মিক উডচিপার

কিছু সমস্যার সমাধান কার্যতই আমাদের নাগালের বাইরে, অন্তত মানুষের ক্ষমতার দৌড়ের কথা বিবেচনা করলে তো বটেই। সন্দেহ নেই, বিশ্বব্রহ্মাণ্ডের সবকিছুই আল্লাহর হাতে, তিনি যেকোনো কিছু করতেই পারঙ্গম, সব সমস্যার সমাধানও...

নাস্তিকতা একটি (অন্ধ)বিশ্বাস!!

নাস্তিকতা হলো হাল আমলের ফ্যাশন, অন্তত আমার অভিজ্ঞতা তাই বলে। তারুণ্যের মনচাহি জিন্দেগীর সামনে বাধার মতো দাঁড়িয়ে থাকে ধর্ম, তাই ধর্ম ছেড়ে দিলে খালি মজা আর মজা (যদিও নাস্তিকদের মাঝে আত্মহত্যার হার বেশি)। ফলে দেখা...

বই পর্যালোচনা: ডাবল স্ট্যান্ডার্ড

বাংলাদেশের নাস্তিকতাবিরোধী বই বিপ্লবে ডাবল স্ট্যান্ডার্ড সম্ভবত দ্বিতীয় সংযোজন। লেখক ইসলামী বিধানগুলোর ‘যৌক্তিকতা’র চেয়ে ‘কল্যাণময়তা’র আলোচনাকে প্রাধান্য দেন।

ইসলাম কি ছোঁয়াচে রোগের অস্তিত্ব অস্বীকার করে?

ইসলামবিরোধীরা দাবি করে যে, রোগ সংক্রমণ সম্পর্কে নবী মুহাম্মাদ (ﷺ) এর হাদীসের বক্তব্য বৈজ্ঞানিকভাবে ভুল। ‘ছোঁয়াচে রোগ’ তো তাদের অন্তরে, যা তারা তাদের অপ্রপচারের দ্বারা মানুষের ভেতর ছড়ানোর চেষ্টা করে।

যোগাযোগ

কিছু ডেইস্ট এবং এগনোস্টিক বিশ্বাস করে- সৃষ্টির সাথে স্রষ্টা আল্লাহ্‌র আর কোনো কমিউনিকেশন নেই! কিন্তু আল্লাহ্ তাঁর সৃষ্টির সাথে বিভিন্নভাবে কমিউনিকেইট করেন।

দাওয়াহ’র ভুল পদ্ধতি

সম্প্রতি আমরা নাস্তিকতার বিরুদ্ধে বিভিন্ন আর্টিকেল বা গ্রন্থ লিখছি। কিন্তু তাদের উত্থাপিত প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়ে আমাদেরই কিছু ভাই ইসলামকে বিকৃতভাবে উপস্থাপন করেছেন। আমি মনে করি তাঁরা জিনিসটি ইচ্ছাকৃতভাবে করেননি। কিন্তু যেই ফিতনা চালু হয়েছে, সেটা বন্ধ করতে তাঁদেরই এক ভাই হিসেবে আমার দায়িত্ব তাঁদের সঠিক দ্বীন বুঝানো।

নাস্তিকতাবিরোধী গল্প

ইসলামী সাহিত্যের এই নতুন ধারার ভালো লাগা দিকগুলো নিয়ে নতুন করে বলার কিছু নেই। যেগুলো নিয়ে কথা বলা বাকি আছে, তা হলো না পাওয়ার বেদনাগুলো আর কিছু ছোটখাটো অভিমান।

সাজিদ সিরিজ – পর্ব ০৩: স্রষ্টা কেন মন্দ কাজের দায় নেন না?

স্যার বললেন,- 'এখানেই ধর্মের ভেল্কিবাজি। ঈশ্বর সব ভালোটা বুঝেন, কিন্তু মন্দটা থেকে নিজেকে গুটিয়ে নিয়েছেন। আদতে, ঈশ্বর বলে কেউ নেই...